মাকসুদা: আন্তর্জাতিক মঞ্চে বাংলাদেশের প্রথম নারী বডিবিল্ডার

0

ট্যাবু ভাঙতে লড়তে চাই’- কথাটা প্রায়ই বলেন বাংলাদেশের নারী বডিবিল্ডার মাকসুদা আক্তার। বাংলাদেশের একটি মেয়ে বডিবিল্ডিং করছে- এটা অনেকে ঠিক মেনে নিতে পারেন না। এজন্য কটুকথা শুনতে হয় তাঁদের।

এসব নিয়ে নেতিবাচক প্রচারণাও হয়। মাকসুদা ঠিক এই ব্যাপারটিরই শেষ দেখতে চান। তিনি স্বপ্ন দেখেন, অন্য আর সবকিছুর মতো নারীও পুরুষের পাশাপাশি বডিবিল্ডিংয়ের মতো প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে।

মাকসুদা তাঁর স্বপ্নের পথে হাঁটা শুরু করেছেন। শরীর গঠন প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন। এরই মধ্যে জিতেছেন জাতীয় শরীর গঠন প্রতিযোগিতায়। জিতেছেন বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ গেমসের নারী ইভেন্টের উন্মুক্ত শ্রেণিতে শিরোপা।

তিনি এখন অপেক্ষায় দেশের প্রথম নারী হিসেবে কোনো আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের।

ভারতের মুম্বাইয়ে আজ শুরু হয়েছে আইএইচএফএফ অলিম্পিয়া অ্যামেচার বডিবিল্ডিং চ্যাম্পিয়নশিপ।

এ প্রতিযোগিতায় ‘ওমেন ফিজিক’ শ্রেণিতে অংশ নেবেন বাংলাদেশের মাকসুদা। প্রতিযোগিতাটি চলবে ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক আসরে অংশ নিতে পেরে রোমাঞ্চিত মাকসুদা। বলেন, প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক আসরে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করতে পেরে খুব ভালো লাগছে আমার।

২০১৬ সালে পতেঙ্গা নৌবাহিনী স্কুল ও কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করে টেক্সটাইল ডিজাইনের ওপর পড়াশোনা করতে ভারতের পাঞ্জাবে যান মাকসুদা। সেখানে পড়াশোনার পাশাপাশি একসময় নিয়মিত জিমে যেতেন।

শরীরচর্চা করতে জিমে গিয়ে তা রীতিমতো নেশায় পরিণত হয় তাঁর। এরপর শরীরচর্চা নিয়ে পড়াশোনা করেন। এরপর বডি বিল্ডিংকেই স্বপ্ন বানিয়েছেন তিনি।

হলিউডের অভিনেতা আর্নল্ড শোয়ার্জেনেগারকে আদর্শ মানেন মাকসুদা। যদিও এ অভিনেতার সঙ্গে এখন পর্যন্ত দেখা হয়নি। তবে মুম্বাইয়ে গিয়ে দেখা পেয়েছেন অনেক তারকা বডিবিল্ডারের।

কঠোর প্রতিবন্ধকতার বেড়াজাল ভেঙে বডিবিল্ডিংয়ে আসা মাকসুদা এরই মধ্যে হয়ে উঠেছেন বাংলাদেশের অনেকের অনুকরণীয়। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সবে পথচলা শুরু মাকসুদার। সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে একদিন বিশ্বের বুকে তিনি ওড়াতে চান নারী বডিবিল্ডিংয়ে বাংলাদেশের পতাকা।

কৃতজ্ঞতা: প্রথম আলো

Share.